শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ০৯:৫৩ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ
করোনায় মৃত্যুবরণ করা এক যুবকের শেষ কথাগুলো করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ‘নিওকোভ’ কি সবচেয়ে প্রাণঘাতী? করোনায় আক্রান্ত স্বাচিপ মহাসচিবের সুস্থতা কামনায় স্বানাপ মহাসচিব ইকবাল হোসেন সবুজ টিকা আবিষ্কার ও ব্যবহারের অনুমতির আগেই সরকার টিকা সংগ্রহের উদ্যোগ নেয় : মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে ২৪ ঘন্টায় কোভিড-১৯ এ মৃত্যু ১৪, আক্রান্ত ১০ হাজার ৯০৬ জন কোভিড-১৯: দেশে ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ১৭ নার্সিং ও মিডওয়াইফারি কলেজ, দিনাজপুর অধ্যক্ষ তাজমিন আরার বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড় বাংলাদেশে নার্সেস এসোসিয়েশনের আহবায়ক কমিটি গঠন বাংলাদেশে নার্সেস এসোসিয়েশনের আহবায়ক কমিটি গঠন? বাংলাদেশে নার্সেস এসোসিয়েশনের আহবায়ক কমিটি গঠন? বাংলাদেশ হেলথ রির্পোটার্স ফোরামের কমিটি গঠন সভাপতি রাশেদ রাব্বি, সাধারণ সম্পাদক মাইনুল সোহেল

স্বাস্থ্যখাতের এতো চাক্ষুষ দুর্নীতির প্রমাণের পরও হয় না কোনো বিচার: সামিয়া রহমান

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১০ জুন, ২০২০
  • ৪৪৯ Time View

সামিয়া রহমান: মৃ’ত্যুও আজ শুধু সংখ্যাই বটে। লকডাউনও আর হবে না। কা’রফিউও হবে না। আক্রা’ন্ত হবে প্রায় প্রত্যেকে। হয়তো আর ২০/৩০ দিনের মধ্যে লাখের ঘরও পার করবো আমরা। অনেকেই আবারো প্রশ্ন তুলতে পারেন, কোথায় পেলাম এই ডেটা। আমিতো ডাক্তার নই, ভাইরোলজিস্টও নই, বিশেষজ্ঞও নই। কিন্তু মে মাসের ৪ তারিখেও বলেছিলাম প্রতি সপ্তাহে আমরা ১০ হাজার অতিক্রম করবো। তাইতে অনেকের কী রাগ!
জুনের ৫ তারিখ। আমরা কিন্তু ৬০ হাজার পার করে ফেলেছি! শুধু অস্বীকার, জেদ, অ’হংকার, গো’ড়ামী করে আমার নিজেদের ধ্বং’স করলাম। কারণ অর্থনীতি সচল রাখা জরুরি। আবার আমরা শুধু গার্মেন্টস কর্মীদের কথাই বলি। কিন্তু জানেন কি, এই বাংলাদেশে প্রচুর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আছে যাদের বিভিন্ন ব্র্যাঞ্চে আজ কর্মী কাজ করে। তিন মাস ধরে তাদের কোনোই বেতনই দেয় না কর্তৃপক্ষ। অথচ মালিক বা মালকিনরা প্রতি মাসে কয়েক কোটি টাকা আয় করতেন তাদের প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে। ইচ্ছে করেই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর নাম নিলাম না সম্পর্কের খাতিরে। কিন্তু প্রশ্ন হলো, যে অর্থনীতির কথা বলে সবাইকে রাস্তায় নামানো হলো, সেই অর্থনীতি কোনো কাজে আসছে এখন। আর কতো মানুষ আক্রা’ন্ত হলে টনক নড়বে কারও।

স্বাস্থ্যখাতের এতো চাক্ষুষ দুর্নীতির প্রমাণের পরও হয় না কোনো বিচার। উ’ল্টো পত্রিকায় খবর হয় দাম বাড়িয়ে জিনিষ ক্রয়ের। এই দুঃসময়েও। কোভিড-১৯ এর সঙ্গে বসবাসের আদৌ কি প্রয়োজন ছিলো? শুধু একটু যদি মানবিক বুদ্ধিটা আল্লাহ আমাদের দিতেন। করোনা প্রকৃতি প্রদত্ত অস্বীকার করছি না। কিন্তু আজ এই দুরবস্থার দায় সম্পূর্ণ আমাদের নীতিনির্ধারকদের। তারা কি ইহজীবনে শুধরাবেন বা কোনোদিনই মাথা পেতে দায় নেবেন? নাকি সব ষড়যন্ত্র বলে আবারো হাত উল্টাবেন! প্লিজ সমালোচনা হিসেবে নেবেন না। মনে করবেন নিজের মনে পাগলের প্র’লাপ বকছি। পাগল হতে আর বাকি কোথায়।

source: mtnews24

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021
Design & Developed by Freelancer Zone
themesba-lates1749691102