শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ১০:২০ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ
করোনায় মৃত্যুবরণ করা এক যুবকের শেষ কথাগুলো করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ‘নিওকোভ’ কি সবচেয়ে প্রাণঘাতী? করোনায় আক্রান্ত স্বাচিপ মহাসচিবের সুস্থতা কামনায় স্বানাপ মহাসচিব ইকবাল হোসেন সবুজ টিকা আবিষ্কার ও ব্যবহারের অনুমতির আগেই সরকার টিকা সংগ্রহের উদ্যোগ নেয় : মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে ২৪ ঘন্টায় কোভিড-১৯ এ মৃত্যু ১৪, আক্রান্ত ১০ হাজার ৯০৬ জন কোভিড-১৯: দেশে ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ১৭ নার্সিং ও মিডওয়াইফারি কলেজ, দিনাজপুর অধ্যক্ষ তাজমিন আরার বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড় বাংলাদেশে নার্সেস এসোসিয়েশনের আহবায়ক কমিটি গঠন বাংলাদেশে নার্সেস এসোসিয়েশনের আহবায়ক কমিটি গঠন? বাংলাদেশে নার্সেস এসোসিয়েশনের আহবায়ক কমিটি গঠন? বাংলাদেশ হেলথ রির্পোটার্স ফোরামের কমিটি গঠন সভাপতি রাশেদ রাব্বি, সাধারণ সম্পাদক মাইনুল সোহেল

নার্সদের সংক্রমন এড়িয়ে স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করা খুবই জরুরি- তানশীর

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৫ জুলাই, ২০২০
  • ৮২০ Time View
{"source_sid":"3A71FD5F-1290-453B-986C-FDA783823F69_1594822144718","subsource":"done_button","uid":"3A71FD5F-1290-453B-986C-FDA783823F69_1594822144709","source":"other","origin":"gallery"}

ডেস্ক রিপোর্ট: কেউ হাসপাতালে সেবা নিতে এসে আবার নতুন কোন রোগে আক্রান্ত হওয়া উচিত নয়। তবুও বিশ্বব্যাপী প্রতিবছর কয়েকশ মিলিয়ন মানুষ স্বাস্থ্য সেবা সম্পর্কিত সংক্রমন

( health care-associated infections সংক্ষেপে HAIs বলা হয়) দ্বারা আক্রান্ত হয়। অথচ যার বেশীরভাগ প্রতিরোধযোগ্য। কোন দেশ এমনকি সর্বাধিক উন্নত স্বাস্থ্যব্যবস্থা বা সর্বাধিক পরিশীলিত রাস্ট্র ও HAIs থেকে মুক্ত দাবি করতে পারছেনা।
স্বাস্থ্যসেবা সম্পর্কিত সংক্রমন বা এইচ এ আই (HAIs) রোধ করা এখন খুবই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাড়িয়েছে। HAIs রোগীদের চলমান ক্লিনিক্যাল যত্নের পাশাপাশি সংক্রমনের ঝুঁকিটিকে খাপখাওয়াতে,প্রতিক্রিয়া জানাতে এবং পরিচালনা করার জন্য স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থপনার সক্ষমতাকে প্রভাবিত করে।
HAIs কমানোর জন্য সংক্রমন প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ (Infection Prevention and Control সংক্ষেপে IPC) ব্যবস্থপনা জোরদার করা অবশ্যক।
সংক্রমন প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ বা আইপিসি কি?

এটি একটি ব্যবহারিক, প্রমানভিত্তিক পদ্ধতি যা রোগী ও স্বাস্থ্যকর্মীদের এড়ানো যায় না এমন সংক্রমন হতে ক্ষতিগ্রস্থ হওয়া থেকে রক্ষা করে। কার্যকর আইপিসির জন্য নীতি নির্ধারক থেকে শুরু করে সেবাকেন্দ্রের ব্যবস্থাপক, স্বাস্থ্যকর্মী এবং সেবাগ্রহীতা বা রোগী অর্থাৎ স্বাস্থ্য ব্যবস্থার সব স্তরে অবিচ্ছিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন!স্বাস্থ্যসেবা সম্পর্কিত সংক্রমন বা HAIs কি?

যে সংক্রমনটা রোগী সেবা গ্রহনের সময় হাসপাতালে বা যেকোন সেবা কেন্দ্রে যেটা তার ঐ হাসপাতালে ভর্তির সময় বা incubation period এর সময় থাকেনা দর্শনার্থী, পরিবারের সদস্য এবং স্বাস্থ্যকর্মীরাও এইচআইএ দ্বারা আক্রান্ত হতে পারেন। এইচআইএর বেশিরভাগই এক বা একাধিক সাধারণ ব্যবহৃত অ্যান্টিবায়োটিকের বিরুদ্ধে প্রতিরোধী অণুজীবের কারণে ঘটে। সাধারণ এইচআইএর মধ্যে প্রস্রাব, বুক, রক্ত এবং ক্ষত সংক্রমণ অন্তর্ভুক্ত।

সাধারণ এইচআইএর নির্ধারক নিম্নরূপ:

সকল স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রেঃ
১.আক্রমণাত্মক মেডিকাল ডিভাইস এবং
অ্যান্টিবায়োটিকগুলির অনুপযুক্ত ব্যবহার
২.উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ ডায়াগনস্টিক বা চিকিৎসা
৩.রোগপ্রতিরোধক্ষমতা ধ্বংসকারী -দমন,
অন্যান্য গুরুতর অন্তর্নিহিত অসুস্থতা এবং
শারীরিক অবস্থা নবজাতক এবং বয়স্ক ব্যক্তিদেরকে প্রভাবিত করে
৪. আইপিসির সাবধানতার পুর্নরুপে প্রয়োগ না করা।
সীমিত ব্যবস্থপনায় সেবা কেন্দ্রেঃ
১. স্যানিটেশন, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা এবংবিশুদ্ধ পানির অভাব, পরিবেশ পরিষ্কার।
২.অপর্যাপ্ত সরঞ্জাম।
৩.কম জনবল এবং প্রচুর রোগী।
৪. ইনজেকশন এবং রক্ত সঞ্চালনের সুরক্ষা। নিয়মসহ সহ সমস্ত আইপিসির ব্যবস্থা সম্পর্কে জ্ঞান সল্পতা।
৫ স্থানীয় / জাতীয় আইপিসি নির্দেশিকা, নীতি এবং কর্মসূচীর অনুপস্থিতি।

স্বাস্থ্যসেবা সংক্রমণ রোধ ও নিয়ন্ত্রণ কেন গুরুত্বপূর্ণ: প্রতি বছর কয়েক লক্ষ রোগী এইচআইএ দ্বারা আক্রান্ত হয়,
তবে পশ্চিম আফ্রিকার সাম্প্রতিক ইবোলা ভাইরাসজনিত রোগের প্রাদুর্ভাবের মতোই এই সমস্যাটি তখনই জনসাধারণের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। যদিও প্রায়শই জনসাধারণের দৃষ্টি আকর্ষণ থেকে লুকানো থাকে। স্থানীয়, চলমান সমস্যাটি খুব বাস্তব এবং কোনও সংস্থা বা দেশ এটিকে উপেক্ষা করার সামর্থ্য রাখে না।

নিম্নোক্ত কারনে স্বাস্থ্যসেবা সম্পর্কিত সংক্রমন গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছেঃ

১. এইচআইএগুলি অপ্রয়োজনীয় মৃত্যু ঘটায়
২.এইচআইএর ফলে একটি মানবিক এবং অর্থনৈতিক প্রতিবন্ধকতা তৈরি হয়।
৩. এইচআইএ কারনে রোগীদের হাসপাতালে দীর্ঘদিন থাকতে হয় এবং দীর্ঘমেয়াদি অক্ষমতা তৈরি করে এবং অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল প্রতিরোধের বোঝা বাড়ায় (এএমআর) অর্থাৎ ব্যকটেরিয়া এন্টিবায়োটিক প্রতিরোধী হয়ে উঠে।

৪.আইপিসি প্রোগ্রামের অংশ হিসাবে নিয়মিত এইচএআই নজরদারি ছাড়াই, স্থানীয়ভাবে এবং জাতীয়ভাবে সমস্যাটিকে সনাক্তকরন এবং উত্তরনের পদক্ষেপ নেয়া অসম্ভব।একটি পরিসংখ্যান দেখা যায় (বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কতৃক ২০১৬ সালে প্রকাশিত)

কি কি কারনে স্বাস্থ্যসেবা সম্পর্কিত সংক্রমন হতে পারে:

‌√ এইচএআই ফ্রিকোয়েন্সি গড়ে বিশ্বব্যাপী প্রতি ১০জন রোগীর মধ্যে ১জন এইচএআই দ্বারা আক্রান্ত হয়।
তীব্র পরিচর্যা করা হয় এমন হাসপাতালে, প্রতি ১০০ রোগীর মধ্যে, উন্নত দেশে ৭ জন এবং উন্নয়নশীল দেশে ১৫ জন কমপক্ষে একটি এইচএআই দ্বারা আক্রান্ত হবে।√আইসিউতে উচ্চ-আয়ের দেশগুলিতে, ৩০% পর্যন্ত রোগী নিবিড় পরিচর্যা ইউনিটে কমপক্ষে একটি এইচএআই দ্বারা আক্রান্ত হয়; উন্নয়নশীল দেশগুলিতে ফ্রিকোয়েন্সি কমপক্ষে ২-৩ গুণ বেশি।

√ইনজেকশন সুরক্ষা বিশ্বব্যাপী প্রতিবছর ১৬ বিলিয়ন ইনজেকশন পুশ করা হয় রোগীদের শরীরে , যার মধ্যে ৭০% কিছু উন্নয়নশীল দেশগুলিতে পুনরায় ব্যবহৃত সিরিঞ্জ এবং সূঁচ দিয়ে দেওয়া হয়।

√হাতের স্বাস্থ্যবিধি
গড়ে, 61% স্বাস্থ্যকর্মী হ্যান্ড হাইজিনের প্রস্তাবিত পরামর্শগুলি মেনে চলেন না।

√নবজাতকের যত্ন হাসপাতালে জন্মগ্রহণকারী বাচ্চাদের মধ্যে সংক্রমণটি নবজাতকের সময়কালে মৃত্যুর সমস্ত কারণের ৫% -৫৬% এর জন্য দায়ী ।

√মাতৃসেবা আফ্রিকাতে, ২০% পর্যন্ত মহিলারা সিজারিয়ান বিভাগের পরে একটি ক্ষত সংক্রমণ পান যা তাদের স্বাস্থ্যের উপর এবং শিশুর যত্ন নেওয়ার ক্ষমতাকে প্রভাবিত করে।

√এএমআর( এন্টি মাইক্রোবিয়াল রেসিটেন্স) মেথিসিলিনরেসিসেটিভ স্টাফিলোকক্কাস অরিয়াস (এমআরএসএ) আক্রান্ত রোগীদের ননরেস্টিভ স্ট্রেনে আক্রান্তদের চেয়ে প্রায় ৫০% বেশি মারা যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।আইপিসি কেন এত গুরুত্বপূর্ণ?

সংক্রমন প্রতিরোধ ব্যবস্থা জোরদার হলে হাসপাতালে সংক্রমন কমবে।
ত্রুটিযুক্ত আইপিসি ক্ষতি সৃষ্টি করে এবং হত্যা করতে পারে। কার্যকর আইপিসি ছাড়া মানসম্পন্ন স্বাস্থ্যসেবা সরবরাহ করা অসম্ভব।এএমআর থেকে হুমকির সময়ে এবং যখন বেশিরভাগ দেশ সবার জন্য স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করার জন্য কাজ করছে এখানে আইপিসির একটি বিশাল অবদান রয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সহকারী পরিচালক (হেল্থ সিস্টেম এন্ড ইনোভেশন) ডাঃ মেরি-পাওল কেনি বলেন
”যদি আমরা শক্তিশালী স্বাস্থ্য ব্যবস্থা অর্জন করতে চাই তবে আমাদের অবশ্যই প্রতিটি স্তরে সংক্রমণ রোধ এবং নিয়ন্ত্রণকে সংহত করার জন্য একসাথে কাজ করতে হবে কারন এটি জনস্বাস্থ্যের একটি গুরুত্বপূর্ন। ”আইপিসি নিম্নলিখিত বিশ্বব্যাপী স্বাস্থ্য অগ্রাধিকার অর্জনে অবদান রাখে:
১.SDG গোল: ৩.১-৩, ৩.৮, ৩.ডি এবং ৬ অর্জনে সহায়ক।
২। এএমআর গ্লোবাল এবং জাতীয় কর্ম পরিকল্পনা
৩। পুর্ব প্রস্তুতি এবং প্রাদুর্ভাবের প্রতিক্রিয়া।
৪। আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য বিধি
৫। পোস্ট-ইবোলা পুনরুদ্ধারের পরিকল্পনা
৬। মানসম্মত সার্বজনীন স্বাস্থ্য কভারেজ
৭। রোগী এবং স্বাস্থ্য কর্মীদের নিরাপত্তা
৮। সংহত ব্যক্তিদের কেন্দ্রিক পরিষেবাগুলির উপর WHO কাঠামো।আইপিসি কিভাবে স্বাস্থ্যসেবায় সংক্রমন কমায়?

আইপিসি রোগীর সুরক্ষা এবং যত্নের মানের ক্ষেত্রে অনন্য, কারণ এটি প্রতিটি স্বাস্থ্যকর্মী এবং রোগীর সাথে প্রতিটি স্বাস্থ্যসেবা মিথস্ক্রিয়ায় সর্বজনীনভাবে প্রাসঙ্গিক।
অনেক প্রমাণ রয়েছে যে আইপিসির সেরা অনুশীলনগুলি প্রয়োগ করে স্বাস্থ্য সেবা সম্পর্কিত সংক্রমন বা HAIs উল্লেখযোগ্য হ্রাস পেয়েছে এবং রোগীর ক্ষতিও কমেছে।
আইপিসি রাজনৈতিক ও ম্যানেজমেন্ট দ্বারা সমর্থিত হয়ে গেলে, ক্লিনিকাল পরিষেবাদি এবং রোগীর সুরক্ষা সংস্কৃতিতে একীভূত হয়ে সেরা ফলাফল অর্জন করা সম্ভব।কার্যকর আইসিসির মাধ্যমে সংক্রমন কমানোর প্রমান তথ্যসুত্রঃ WHO 2016> ৩০% হ্রাস: কার্যকর আইপিসি ব্যবস্থপনা HAIs ৩০% এরও বেশি হ্রাস ঘটায়।
২৫-৫৭% হ্রাস: যথাযথ নজরদারিতে HAIs ২৫-৫৭% হ্রাস পায়।

৫০% হ্রাস: স্বাস্থ্যসেবা প্রদানের ক্ষেত্রে হ্যান্ড হাইজিন অনুশীলনে রোগজীবাণু সংক্রমণ ৫০% হ্রাস করতে পারে।

১৩-৫০% হ্রাস: ২০০৮ থেকে ২০১৪ সালের মধ্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কার্যকর করা স্ট্রং আইপিসি পরিকল্পনা কেন্দ্রীয় লাইন-সম্পর্কিত রক্ত প্রবাহের সংক্রমণকে ৫০%, সার্জিকাল সাইটের সংক্রমণ (SSI) ১৭% এবং এমআরএসএ ব্যাকেরেমিয়া ১৩% হ্রাস করেছে।

৫৬℅ হ্রাস: জাতীয় লক্ষ্য অনুসারে ইংল্যান্ডে চার বছরের সময়কালে এমআরএসএ ৫৬℅হ্রাস পেয়েছে ।

৪৪℅ হ্রাস: একটি সুরক্ষা সংস্কৃতি এবং প্রতিরোধ কর্মসূচী মাধ্যমে আফ্রিকান হাসপাতালে এসএসআই ঝুঁকি 44% হ্রাস করেছে।

৮০℅ সম্মতি: অস্ট্রেলিয়া দেশজুড়ে ২০১০ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে হাসপাতালে ৮০% হাতের স্বাস্থ্যবিধি সম্মতি অর্জন করেছে এবং ধরে রেখেছিল।

আমরা কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে HAIs বা স্বাস্থ্যসেবা সংক্রমন কমানোর জন্য কাজ করে যাচ্ছ। ইতিমধো হাসপাতালের প্রতিটি প্রবেশ পথে স্ক্রিনিং কার্যক্রম চলমান।আছে নিয়মিত সংক্রমন সার্ভে এবং বর্জ্য ব্যবস্থপনা কার্যক্রম। এছাড়াও হাসপাতালে স্বাস্থ্যকর্মীদের হাতধোয়া প্রশিক্ষন ও সংক্রমন প্রতিরোধ বিষয়ক সভা করা হয়।উপরের আলোচনা থেকে সহজে বুঝা যায় সংক্রমন কমিয়ে স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করা গেলে আমরা অনেক গুলি অনাকাঙ্ক্ষিত ক্ষতি থেকে বাঁচব।

এজন্য প্রয়োজন যথাযথ সংক্রমন প্রতিরোধ ব্যবস্থা। সংক্রমন প্রতিরোধ ব্যবস্থা জোরদার হলে হাসপাতালে সংক্রমন কমবে। সংক্রমন প্রতিরোধ ব্যবস্থার জোরালো ভুমিকা নিশ্চিত করতে গেলে আমাদের রাজনৈতিক এবং টপ ম্যানেজম্যান্টের সহায়তা প্রয়োজন।এজন্য সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

লেখকঃ ছৈয়দ আহমদ তানশীর উদ্দীন

নার্সিং কর্মকর্তা
ডেপুটি ফোকাল পারসন
সংক্রমন নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কমিটি
২৫০শয্যা জেলা সদর হাসপাতাল, কক্সবাজার

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021
Design & Developed by Freelancer Zone
themesba-lates1749691102